14 ই ফেব্রুয়ারীর অশ্লীলতা রোধে নৈতিক চেতনা

দুঃখিত লেখাটা কার জীবনের
সাথে মিলে গেলে ক্ষমা করবেন
বখাটে মেয়েরা বা ছেলেরা পস্তুত তো.?
আসছে ১৪ ই ফেব্রুয়ারী ( বিশ্ব ধর্ষন দিবস)
১৪ ফেব্রুয়ারি তে বাহিরে বের হলেই আপনাদের
বয়ফ্রেন্ডরা উওম পুরস্কার দিয়ে দিবে।।যার ফলাফল ১৪ নভেম্বরের মধ্যেই পেয়ে যাবেন।।।।
ও আচ্ছা আপনি ভাবছেন জন্মনিয়ন্ত্রণ
ব্যবস্থা গ্রহন করবেন!! সেটা করতে পারবেন কিন্তু সতিত্ব আর ফিরিয়ে আনতে পারবেন না।।
দেহটাকে যদি সরকারি টয়লেট
ভাবেন তাহলে নো টেনশন (everybody use 4
u )!!!!!
আর যদি আপনার দেহটাকে হীরার চেয়েও বেশি
মূল্যবান ভাবেন তাহলে মেনি মেনি টেনশন।
কারন লুচ্চা গুলো এই দিনটির জন্য খেপা ষাঁড়ের মত অপেক্ষা করছে।
তাই ১৪ ই ফেব্রুয়ারি কে ভুলে যান।
ও আচ্ছা বোন আপনি ভাবছেন ভালোই ত
বাসবেন এতে সমস্যা কি??
তাহলে আমি বলি
আপনার বাবামাকে বিয়ের কথা বলে
বিয়ে করে সারাজীবন ইচ্ছামতো ছক্কা
মারেন….!!!কোন সমস্যা নেই।। আপনাদের
অর্ধউলঙ্গ দেহ দেখে যদি পাগলা
ঘোড়াগুলি( বখাটে ছেলে) কিছু করেই
ফেলে, তাহলে গোটা পুরুষ জাতিকে
দোষারোপ করতে পারবেন না
কিন্তু !!! যদি করেন
তাহলে, আপনার চৌদ্দগুষ্টি জারজ
বলে বিবেচিত হবে
সম্মান নিয়ে বাচতে চাইলে
ওইদিন ঘরেই বিশ্রাম নিন। তা না হলে…………
.ছক্কা……..একটাও মিস হবে না !!!!!!!
বিঃদ্রঃ আমার উদ্দেশ্য সমাজটাকে
ভদ্রতার দিকে আহ্বান করা।
কারও মনে আঘাত করা আমার উদ্দেশ্য নয়।। ছোট মানুষ হয়ে বড়
বড় কথা বলে ফেললাম। সরি
সরি সরি সরি সরি
সরি……..!!!!!”
ঔদিন পারলে রোজা রাখুন,,,,
১৪ ই ফেব্রুয়ারির পূর্ব পযন্ত এই
আন্দোলন চলতেই থাকবে,হতেও তো
পারে একজনও যদি তার সম্মান
বাচানোর চেষ্টা করতেও পারেন ৷

Share This Post

Leave a Comment