একটি জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে সর্বোচ্চ পাঁচটি সিম নিবন্ধনের সীমাবদ্ধতা দূর করে আগের মতো ২০টি সিম নিবন্ধন শুরু।

আসসালামু ওয়ালাইকুম।
কেমন আছেন বন্ধুরা।


প্রথমেই বলে নিচ্ছি নিউজ টি কপি করা।
সবাইকে জানানোর জন্য ট্রিকবিডিতে প্রকাশ করেছি।

একটি জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) দিয়ে সর্বোচ্চ পাঁচটি সিম বায়োমেট্টিক পদ্ধতিতে নিবন্ধনের সীমাবদ্ধতা দূর করে আগের মতো ২০টি সিম নিবন্ধনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।


এর ফলে একজন গ্রাহক তার এনআইডির বিপরীতে এক বা একাধিক অপারেটরের সব মিলিয়ে ২০টি সিম রাখতে পারবেন।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের উপস্থিতিতে বৈঠকে টেলিযোগাযোগ খাতের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।


প্রায় তিন ঘণ্টার বৈঠক শেষে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “একজন গ্রাহক একটি জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) দিয়ে সর্বোচ্চ ২০টি সিম রাখতে পারবেন বলে বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে।”

২০১৬ সালে জেলা প্রশাসক সম্মেলনে একটি জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) দিয়ে সর্বোচ্চ ২০টি সিম বায়োমেট্টিক পদ্ধতিতে নিবন্ধনের সুযোগের পরিবর্তে পাঁচটিতে কমিয়ে আনার ঘোষণা দেওয়া হয়।


ওই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে গত সেপ্টেম্বরে মোবাইল অপারেটরগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হলেও তাতে সেভাবে সাড়া পাওয়া যায়নি বলে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন।


বিটিআরসির হিসাবে গত অগাস্ট শেষ নাগাদ দেশে মোট মোবাইল ফোন গ্রাহক আছে ১৩ কোটি ৯৩ লাখের বেশি।

২০টির বেশি সিম রাখা বা বায়োমেট্রিক নিবন্ধন করা সিম হস্তান্তরের বিষয়ে গ্রাহকদের সতর্ক করে প্রতিমন্ত্রী বলেন,

“গ্রাহকদের মনে রাখতে হবে, এখন বিটিআরসির বায়োমেট্রিক সেন্ট্রাল মনিটরিং সিস্টেম আছে। বিটিআরসি কিন্তু সুনির্দিষ্ট বলে দিতে পারছে, কোন অপারেটরের কতো গুলো সিম আপনি রেজি করেছেন।তাই সতর্ক থাকুন।

ধন্যবাদ।

Share This Post
About MainitBD Author

শিক্ষা জাতীর মেরুদন্ড! শিখবো, না হয় শেখাবো।

Leave a Comment