সব ধরনের প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম | MS প্রত্যয়ন পত্র ফরমেট

সব ধরনের প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম ও প্রত্যয়ন পত্র ফরমেট ও নমুনা

প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম

এক নজরে দেখুন আর্টিকেল সূচি

প্রত্যয়ন পত্র নিয়ে আজকের আলোচনা করব, আপনারা অনেকেই প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম ও বিভিন্ন ধরণের প্রত্যয়ন পত্র ফরমেট অনলাইনে সার্চ দিয়ে থাকেন আজকের একটি পোস্টে সেই সকল বিষয়ে আপনারা জানতে ও উপকৃদ হবেন, চলুন শুরু করা যাক।

প্রত্যয়ন পত্র কি

এটি এমন একটি দলিল যা প্রমাণ করে যে একটি ব্যক্তি বা সংস্থা নিশ্চিত ধরনের কাজ করেছে বা নির্দিষ্ট ধরনের তথ্য বা অনুমোদন প্রদান করতে যোগ্য। এটি অনেকগুলি উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হতে পারে,এই পত্রটি প্রমাণ করে যে একজন ব্যক্তি বা সংস্থা নিশ্চিতভাবে উল্লিখিত কাজ বা অনুমোদন প্রদান করেছে এবং এটি গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট হিসাবে ব্যবহৃত হতে পারে যা সম্প্রদায়ের প্রতিষ্ঠান, নীতিবিধি কর্মকর্তা, ব্যাংক এবং অন্যান্য সংস্থা দ্বারা গ্রহণযোগ্য হতে পারে।

প্রত্যয়ন পত্রের ব্যবহার

আপনি যদি চাকুরির জন্য আবেদন করতে চান বা ভিসা পেতে চান, আপনার প্রত্যয়ন পত্রের দরকার পড়তে পারে। এটি একটি নির্দিষ্ট ধরনের প্রমাণ যা আপনার অবস্থান, পেশা এবং আপনার ব্যক্তিগত তথ্য নিশ্চিত করে। যেমন, একজন স্থায়ী বাসিন্দা হলেন, তার ঠিকানা নিশ্চিত করার জন্য একটি বিদ্যালয় এবং কাজের সম্পর্কে অন্যান্য তথ্য যাচাই করা যেতে পারে, এজন্য আজকে আপনাদের দেখাব,প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম।

প্রয়োজনীয়তা

প্রত্যয়ন পত্রের প্রয়োজনীয়তা অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। এটি বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রয়োজন হতে পারে, যেমন চাকুরি নিয়োগের সময়, বিদেশ পড়াশোনার জন্য, ব্যাংক হিসাব খোলার জন্য, ব্যবসা আরম্ভ করার সময় ইত্যাদি।

  • চাকুরির জন্য আবেদন: কোনো সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করার জন্য প্রত্যয়ন পত্র প্রয়োজন হতে পারে। এটি নিয়োগের প্রক্রিয়ায় একটি গুরুত্বপূর্ণ দলিল হিসাবে কাজ করে।
  • বিদেশ পড়াশোনার জন্য: অনেকেরই প্রত্যয়ন পত্রের প্রয়োজন পড়ে যাতে তারা বিদেশে শিক্ষা প্রাপ্ত করতে পারেন। এটি ভিসা এবং অন্যান্য কাজের জন্য প্রমাণ হিসাবে ব্যবহৃত হয়।
  • ব্যাংক হিসাব খোলার জন্য: নিজের ব্যক্তিগত হিসাব খোলার জন্য অনেক সময় প্রত্যয়ন পত্র দরকার হতে পারে। ব্যাংক এই তথ্য নিশ্চিত করতে প্রত্যয়ন পত্র চায়।
  • ব্যবসা আরম্ভ করার সময়: নতুন এবং ছোট ব্যবসায়ীদের জন্য প্রত্যয়ন পত্র প্রয়োজন হতে পারে যাতে তারা ব্যবসা আরম্ভ করতে পারেন এবং ক্রেতা ও সরবরাহকারীদের সাথে লেনদেন করতে পারেন।
  • ভোটার আইডি কার্ড প্রমাণ: ভোটার আইডি কার্ড প্রমাণের জন্য প্রত্যয়ন পত্র প্রয়োজন হতে পারে। ভোটার আইডি কার্ড হলো একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রমাণ দলিল যা নাগরিকত্ব এবং নির্বাচন সম্পর্কিত অনেক কাজে ব্যবহৃত হয়।
  • ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন: কোনো ব্যবসা প্রারম্ভ করতে গেলে প্রত্যয়ন পত্র প্রয়োজন হতে পারে ভ্যাট রেজিস্ট্রেশনের জন্য। এটি ব্যবসা প্রমাণ হিসাবে কাজ করে এবং সরকারি প্রদত্ত সুবিধা উপভোগ করতে দেয়।
  • জাতীয় পাসপোর্ট আবেদন: পাসপোর্ট আবেদনের সময় প্রত্যয়ন পত্র প্রয়োজন হতে পারে। এটি আপনার প্রধান প্রমাণ দলিল হিসাবে কাজ করে এবং বিভিন্ন দেশে ভ্রমণ করতে সহায়ক হয়।
  • বিমা ক্লেইম: অনেক সময় যখন কোনো অপ্রত্যাশিত ঘটনা ঘটে যেমন বাড়ির আগুন, গাড়ি দুর্ঘটনা ইত্যাদি, তখন বিমা ক্লেইমের জন্য প্রত্যয়ন পত্র প্রয়োজন হতে পারে।

এই সমস্যাগুলির মূল্যায়ন করে দেখা যায় যে প্রত্যয়ন পত্র একজন ব্যক্তির প্রমাণ দলিল হিসাবে কাজ করে এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে দরকার পড়তে পারে।

প্রত্যয়ন পত্র কত প্রকার?

  1. চারিত্রিক সনদপত্র: এটি ব্যক্তির চারিত্রিক গুণগত মান নিয়ে জমা প্রদানের উদ্দেশ্যে প্রদান করা হয়।
  2. শিক্ষাগত যোগ্যতা সনদ: এই প্রকার পত্রে ব্যক্তির শিক্ষাগত যোগ্যতা এবং শিক্ষা সংক্রান্ত তথ্য থাকে।
  3. ঠিকানার প্রমাণপত্র: যেটি ঠিকানার প্রমাণের জন্য ব্যবহৃত হয়।
  4. ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স: ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স এবং নিবন্ধনের প্রমাণপত্র।
  5. নাগরিকত্ব সনদ: ব্যক্তির নাগরিকত্ব অবলম্বন করার জন্য প্রদান করা হয়।
  6. ওয়ারিশ সনদ: ব্যক্তির উত্তরাধিকারীদের তার ওয়ারিশ হওয়ার প্রমাণপত্র।
  7. নিবন্ধন পত্র: কোনও নিবন্ধনযোগ্য বিষয়ে তথ্য যোগ্য হওয়ার প্রমাণপত্র।

অতিরিক্ত প্রত্যয়ন পত্র

  1. বৈবাহিক অবস্থান সনদ: ব্যক্তির বৈবাহিক অবস্থা ও সম্পর্কে তথ্য প্রমাণের পত্র।
  2. বেসরকারি চাকুরির প্রত্যয়ন পত্র: ব্যক্তির বেসরকারি চাকুরির অভিজ্ঞতা এবং ক্যারিয়ারের তথ্য প্রমাণের পত্র।
  3. মৃত্যু সনদ: কোনও ব্যক্তির মৃত্যুর প্রমাণপত্র।
  4. বৃত্তিক প্রতিষ্ঠানের প্রত্যয়ন পত্র: ব্যক্তির আউটসোর্সিং বা বৃত্তিক কাজের জন্য প্রমাণপত্র।
  5. টেক্স আইডি: কোনও ব্যক্তির ব্যাক্তিগত ইটিন টেক্স প্রমাণপত্র।
  6. পাসপোর্ট: এটি একটি ব্যক্তিগত ইটিন সহজলভ্য প্রমাণপত্র।
  7. অনুমতি পত্র: কোনও ব্যক্তির কোনও নিশ্চিত কাজের জন্য প্রমাণপত্র।
  8. স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানের প্রত্যয়ন পত্র: কোনও ব্যক্তির চিকিৎসা সেবা নিয়ে একটি প্রমাণপত্র।
  9. বেকারত্বের প্রত্যয়ন পত্র
  10. কোম্পানির প্রত্যয়ন পত্র
  11. উপজাতি মর্মে প্রত্যয়ন পত্র
  12. ভুমিহীন মর্মে প্রত্যয়ন পত্র
  13. ‌বিবাহিত মর্মে প্রত্যয়ন পত্র
  14. এতিম মর্মে প্রত্যয়ন পত্র
  15. অবিবাহিত মর্মে প্রত্যয়ন পত্র
  16. পুনঃর্বিবাহ মর্মে প্রত্যয়ন পত্র

এগুলি কোনও নির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠান বা ক্ষেত্রে প্রয়োজন হতে পারে এবং এগুলি একজন ব্যক্তির বিভিন্ন পরিস্থিতিতে দরকার হতে পারে। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা, চাকরি নিয়ে যাওয়া, অথবা ব্যবসায়ে যোগদানের জন্য এই ধরনের প্রত্যয়ন পত্র প্রয়োজন হতে পারে।

প্রত্যয়ন পত্র তৈরী করার পদ্ধতি

ধাপ ১: আবেদনকারীর তথ্য লিখুন

  • প্রথমেই বলে রাখি, প্রত্যয়ন পত্র নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটারে ওয়ার্ড ফাইলে পূর্ব থেকেই ফরম্যাট গুলো করা থাকে।  প্রয়োজন একটি পেপারে লিখে সিল মোহর ও স্বাক্ষর দিয়েও  প্রত্যয়ন পত্র প্রদান করতে পারেন।
  • প্রথমে আবেদনকারীর সম্পূর্ণ তথ্য লিখতে হবে। তার নাম, পিতার নাম, মাতার নাম, ঠিকানা, জন্মতারিখ, ধর্ম, জাতীয়তা, বৈবাহিক অবস্থা, বিদ্যালয়ের নাম এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্য লিখতে হবে।
  • একটি প্রত্যয়নপত্রে অবশ্যই তথ্য প্রদানকারীর স্বাক্ষর থাকতে হবে।
  • একটি প্রত্যয়নপত্র প্রদানকারী যদি কোন ব্যক্তি হন তাহলে তার সীল মোহর ও স্বাক্ষর অথবা যদি  প্রতিষ্ঠান থেকে প্রত্যয়ন পত্র প্রদান করা হয় তাহলে প্রতিষ্ঠান প্রধানের সীল ওস্বাক্ষর থাকতে হবে।

ধাপ ২: যাচাই ও নিশ্চিতকরণ

  • আবেদনকারীর যাচাই ও নিশ্চিতকরণের জন্য প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট সাবমিট করতে হবে। যেমন:
    • পাসপোর্ট কপি
    • নিবন্ধন কার্ডের কপি
    • ব্যাংক স্টেটমেন্ট
    • ইটিন নম্বর
  • অনেক সময় দেখা যায় যে,আপনার প্রত্যয়ন পত্র টি সত্যতা যাচাই করার জন্য এগুলো লাগতে পারে।

ধাপ ৩: তথ্য সংগ্রহ এবং অনুমোদন

  • প্রত্যয়ন পত্রের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করতে হবে। এই তথ্যের মধ্যে আপনার পেশা, আয়, স্থায়ী ঠিকানা, যাত্রীর তথ্য ইত্যাদি থাকতে পারে। এই তথ্যের উপরে ভিত্তি করে প্রত্যয়ন পত্র এবং অনুমোদন প্রদান করা হয়।

ধাপ ৪: প্রত্যয়ন পত্র প্রক্রিয়া এবং সম্পূর্ণ

  • তথ্য সংগ্রহের পরে প্রত্যয়ন পত্র টি প্রক্রিয়া শুরু হয়। প্রত্যয়ন পত্রের সমস্ত তথ্য সঠিক এবং নিশ্চিত হলে পত্র প্রদান করা হয়।

এই পদ্ধতি অনুসরণ করে প্রত্যয়ন পত্র প্রস্তুত করা হয়। প্রত্যয়ন পত্র অনেকগুলি উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হতে পারে, এবং সঠিক তথ্য এবং ডকুমেন্ট সাবমিট করা জরুরি।

প্রত্যয়ন পত্রের ফরমেট

চলুন এবার কিছু প্রত্যয়ন পত্রের ফরমেট দেখা যাক, বোঝার সুবিধার্থে নিচে একটি  প্রত্যয়ন পত্রের নমুনা দেয়া হল। ফলে আপনারা প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম সম্পর্কে আরও ভালোভাবে জানতে পারবেন, এছাড়া আমি আপনাদের ওয়ার্ড এবং পিডিএফ ফাইল দিব, যাতে আপনারা সহজেই প্রত্যয়ন পত্র লিখতে পারেন।

                                                  প্রত্যয়ন পত্র

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাইতেছে যে, ………………………………………(ব্যক্তির নাম)……………………………………………………

পিতাঃ ………………………………………., মাতাঃ …………………………………………………গ্রাম/মহল্লাঃ ………………………….,  ডাকঘরঃ ……………………… কোড নংঃ ………………. ওয়ার্ডঃ ………………………………….,  ইউনিয়নঃ …………………….., থানাঃ  ……………….. উপজেলাঃ ………………………….., জেলাঃ …………………,  আমার নিকট সে ব্যক্তিগতভাবে পরিচিত।  আমার জানামতে কোন রাষ্ট্র সমাজ বিরোধী কর্মকান্ডে জড়িত নয়।  তার স্বভাব ও চরিত্র ভালো।

আমি তাহার সর্বাঙ্গীন উন্নতি ও মঙ্গল কামনা করছি।                                                                          তারিখঃ …………………..

 

স্বাক্ষর

সিলমোহর

এভাবে বুঝতে না পারলে নিচের একটি প্রত্যয়ন পত্রের ছবি দেখুন তাহলে বুঝতে পারবেন।

প্রত্যয়ন পত্র 

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাইতেছে যে,  মোঃ তালেব মিয়া, পিতা- মোহাম্মাদ আলী, মাতা- বেগম রোকেয়া,  গ্রামঃ কেদারপাড়া, ডাকঘর – আবেদখা,  উপজেলা-রাজবাড়ি, জেলাঃ ঢাকা। তিনি ০৬ নং আবেদখা ইউনিয়ন/ সিটি কর্পোরেশন/পৌরসভার/ ০১ নং ওয়ার্ডের একজন স্থায়ী বাসিন্দা এবং জন্মসুত্রে বাংলাদেশের নাগরিক। আমি তাহাকে ব্যক্তিগত ভাবে চিনি ও জানি। আমার জানামতে সে একজন মেধাবী ছাত্র। তার পিতা একজন দরিদ্র কৃষক ও আর্থিকভাবে অসচ্ছল ব্যক্তি । বিধায়  আমি সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে শিক্ষা উপবৃত্তি দিয়ে তার লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য সুপারিশ করিতেছি। সে সৎ ও উন্নত চরিত্রের অধিকারী এবং সে কোন প্রকার অনৈতিক ও রাষ্ট্রবিরোধী কাজের সহিত জড়িত নই ইহা সত্য।

আমি তাহার সর্বাঙ্গীন মঙ্গল ও উন্নতি কামনা করিতেছি।                                                                                          স্বাক্ষর

চলুন এবার আমরা নিম্নে স্কুল থেকে প্রত্যয়ন পত্র উত্তোলন করার জন্য প্রত্যয়ন পত্রের জন্য আবেদন পত্র নমুনা দেখা যাক।

তারিখ – ২৩/৩/২০২০

প্রধান শিক্ষক
’ক‘ হাই স্কুল
মতিঝিল, ঢাকা

বিষয়: প্রত্যয়ন পত্রের জন্য আবেদন।

মহাশয়,
আমার বিনীত নিবেদন এই যে, আমি আপনার বিদ্যালয়ের একজন নিয়মিত ছাত্র। আমার নাম ……………………………………… , আমি নবম শ্রেণীর ………………….বিভাগের ছাত্র। এ বছর জেএসসি পরীক্ষায় আমি এ+ পেয়ে  উত্তীর্ণ হয়েছি। আমার জেএসসি পরীক্ষার রোল নং……………………………………, রেজিঃ নং ……………………………………………….। দীর্ঘ তিন বছর যাবৎ আমি আপনার বিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করছি। এই তিন বছরে আমি কোনোদিন আইন বিরোধী কাজের সাথে লিপ্ত হইনি। বর্তমানে আমার বাবার চাকরিস্থল পরিবর্তন হওয়ায় আমাকে অন্য একটি বিদ্যালয়ে ভর্তি হতে হচ্ছে। এমতাবস্থায়, আপনার স্বাক্ষরিত একটি প্রত্যয়ন পত্র আমার একান্ত প্রয়োজন।

অতএব মহাশয়,আপনার নিকট বিনীত অনুরোধ, উপরোক্ত কারণ বিবেচনা করে আমাকে একটি প্রত্যয়ন পত্র প্রদানে আপনার একান্ত মর্জি হয়।

বিনীত,
আপনার একান্ত অনুগত
”চ”
শ্রেণী – নবম
বিভাগ – ক
রোল – ০১

বিভিন্ন প্রকার প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম ও নমুনা

কিছু গুরুত্বপূর্ণ  কথা না বললেই নয়, বাংলায় এবং ইংরেজিতে প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম একই। শুধুমাত্র মনে রাখতে হবে যে, বাংলায় লেখার ক্ষেত্রে বাংলা ভাষায় প্রত্যয়ন পত্র লিখতে হবে। আর ইংরেজিতে প্রত্যয়ন পত্র লিখার ক্ষেত্রে ইংরেজি ভাষা ব্যবহার করতে হবে। এছাড়া প্রত্যয়ন পত্র লেখার সকল নিয়ম-কানুন একই থাকে।

চলুন কিছু বহুল প্রয়োজনীয় প্রত্যয়ন পত্র লেখার নমুনা দেখে নেওয়া যাক।

নাগরিক সনদ লেখার নিয়ম

নাগরিক সনদ লেখার নিয়ম

প্রত্যয়ন পত্র

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, মোঃ…………………………., পিতা: …………………………, মাতা: ………………………., গ্রাম: ………………., পোস্ট অফিস: ………………., থানা: …………………………, জেলা: ……………………। তিনি এই এলাকার একজন স্থায়ী বাসিন্দা। সে রাষ্ট্রবিরোধী কোন কর্মকান্ডের যুক্ত নয়।

আমি তার ভবিষ্যৎ জীবনের পরিপূর্ণ সাফল্য ও সর্বাঙ্গীণ মঙ্গল কামনা করছি।

স্বাক্ষর

সিলমোহর

চারিত্রিক সনদ লেখার নিয়ম

চারিত্রিক সনদ লেখার নিয়ম

চারিত্রিক সনদপত্র

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, মোঃ …………………., পিতা: ……………….., মাতা: ………………., গ্রাম: ………………., পোস্ট অফিস: ……………….., থানা: ………………., জেলা: ………………..। তিনি আমার পরিচিত। সে বাংলাদেশের নাগরিক ও অত্র ………………… ইউনিয়নের স্থায়ী বাসিন্দা এবং বিশিষ্ট মুসলিম/হিন্দু পরিবারের সদস্য। এখন পর্যন্ত রাষ্ট্রবিরোধী কোনো কাজে তাকে আমরা জড়িত থাকার খবর পাইনি। তিনি বিবাহিত/অবিবাহিত।

তার নৈতিক চরিত্র অত্যন্ত ভালো এবং ব্যবহার অত্যন্ত আন্তরিক। আমি তার ভবিষ্যৎ জীবনের সাফল্য ও সর্বাঙ্গীণ মঙ্গল কামনা করছি।

সাক্ষর

সিলমোহর

চারিত্রিক সনদ লেখার ‍নিয়ম : গুরুত্বপূর্ণ কিছু কথা

কিছু গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশ:

  1. সনদে নাম, পিতা/মায়ের নাম, জন্ম তারিখ, ঠিকানা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম, এবং শ্রেণী/ডিপার্টমেন্টের নাম উল্লেখ করতে হবে।
  2. প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা স্বাক্ষর করতে হবে।
  3. সনদের ফর্ম্যাট স্কুল/কলেজের নাম, ঠিকানা, এবং তারিখ সম্পর্কে সঠিক তথ্য দেওয়া উচিত।
  4. সনদের নিচে স্বাক্ষরের জায়গায় “স্বাক্ষর: ___________________” লেখা থাকবে যেটি অবশ্যই প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকার স্বাক্ষরের জায়গায় পূরণ করতে হবে।
  5. সনদের একটি প্রতি কপি ছাত্র/ছাত্রীকে দেওয়া হবে এবং আরেকটি স্কুলে সংরক্ষণ করা হবে।
  6. সনদ প্রিন্ট করা হবে মোটামুটি একটি কাগজে যেটি স্কুলের সীল ও স্বাক্ষরের সহিত থাকবে।

উপরের নির্দেশানুযায়ী চারিত্রিক সনদ তৈরি করতে হবে। যেহেতু স্কুলের নাম, তারিখ, এবং অন্যান্য তথ্য প্রতিটি সনদে পরিবর্তন হতে পারে, তাই সম্ভবত স্কুলের নির্দিষ্ট ফর্ম্যাট অনুসরণ করা উচিত।

স্কুল প্রত্যয়ন পত্র / বিদ্যালয়ের প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম

বিদ্যালয়ের প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম

প্রত্যয়ন পত্র

তারিখ:

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, মোঃ ………………………………., পিতা: ………………………, মাতা: ……………………, গ্রাম: ………………., পোস্ট অফিস:……………………., থানা: …………………………, জেলা: …………………………। আমার বিদ্যালয়ের একজন আদর্শ ছাত্র/ছাত্রী হিসেবে বিদ্যা অর্জন করেছেন। তার এসএসসি রোল নম্বর, পাশের সন, জিপিএ। আমি তার সার্বিক সফলতা ও সর্বাঙ্গীণ মঙ্গল কামনা করছি।

প্রধান শিক্ষকের সাক্ষর

বিদ্যালয়ের সিলমোহর

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রত্যয়ন পত্র / কলেজ প্রত্যয়ন পত্র

কলেজ প্রত্যয়ন পত্র

প্রত্যয়ন পত্র

তারিখ:

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা হচ্ছে যে, মোঃ…………………………., পিতা:……………………, মাতা:……………………., ঠিকানা:…………… আমার কলেজের একজন আদর্শ ছাত্র/ছাত্রী হিসেবে বিদ্যা অর্জন করেছেন। তার এইচএসসি রোল নম্বর………………, পাশের সন……………, জিপিএ……….। তার অর্জিত ফলাফল বেশ সন্তোষজনক।

আমি তার ভবিষ্যৎ জীবনের সফলতা কামনা করছি এবং এই আশাবাদ ব্যক্ত করছি সে যেনো নিজের পরিবারের এবং প্রতিষ্ঠানের সুনাম বৃদ্ধি করতে পারে।

প্রিন্সিপালের সাক্ষর

কলেজের সিলমোহর

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম

প্রত্যয়ন পত্র

তারিখ:

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, মোঃ ………………………………, পিতা: ………………………., মাতা: ………………………, গ্রাম: ………………………, পোস্ট অফিস: …………………., থানা: ……………………………, জেলা: ……………………, ডিপার্টমেন্ট: ……………………..। আমার বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশ কৃতিত্বের সাথে তার স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্ন করেছেন।

আমি তার ভবিষ্যৎ জীবনের সফলতা কামনা করছি এবং এই আশাবাদ ব্যক্ত করছি সে যেনো নিজের পরিবারের এবং প্রতিষ্ঠানের সুনাম বৃদ্ধি করতে পারে।

ডিপার্টমেন্ট প্রধানের সাক্ষর

বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলমোহর

কোম্পানির প্রত্যয়ন পত্র / অফিস প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম

প্রত্যয়ন পত্র

তারিখ:

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, মোঃ…………………………, পিতা:…………………, মাতা: ……………………., গ্রাম: ……………………, পোস্ট অফিস: ……………………….., থানা: ………………………., জেলা: ……………………. একজন নিষ্ঠাবান এবং দায়িত্ববাদ সৎ কর্মী হিসেবে আমার কোম্পানিতে বেশ কৃতিত্বের সাথে ……………….. পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।

আমি একান্ত আশাবাদী, তিনি ভবিষ্যৎ যে কোম্পানিতে যাবেন সেই কোম্পানিতে  তার প্রতি অর্পিত সকল দায়িত্ব তিনি অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে সম্পাদন করবেন।

স্বাক্ষর

সিলমোহর

চাকরির প্রত্যয়ন পত্র / অফিসিয়াল প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম

চাকরির প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম

চাকরির প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম, চাকরির বা কোম্পানির প্রত্যয়ন পত্র মূলত একই। কোম্পানি থেকে চাকুরিজিবী বা কর্মচারীদের জন্য যে প্রত্যয়ন পত্র প্রদান করা হয় তাকেই কোম্পানির বা চাকরির প্রত্যয়ন পত্র বলে।

প্রত্যয়ন পত্র

তারিখ:

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, মোঃ ………………………, পিতা: ………………………., মাতা: …………………….., গ্রাম: ……………………………, পোস্ট অফিস: ………………, থানা: …………………….., জেলা: ……………………….। তিনি অত্যন্ত সরলতার সাথে তার উপর অর্পিত সকল দায়িত্ব নিষ্ঠার সাথে সম্পন্ন করেছেন। বর্তমানে তিনি একজন চাকরি প্রত্যাশী।

আশা করি যে, তিনি ভবিষ্যতে যে চাকরি পাবেন তা তাকে সফলতার শীর্ষ স্থানে নিজেকে অধিষ্ঠিত করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

স্বাক্ষর

সিলমোহর

অতিরিক্ত কিছু প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম

এতিম মর্মে প্রত্যয়ন পত্র

[তারিখ]

প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]
[ঠিকানা]

বিষয়ঃ প্রত্যয়ন পত্র

অত্যন্ত দুঃখিত ও মর্মাহত অবস্থায় এই প্রত্যয়ন পত্র জারি করা হচ্ছে। প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, [নাম] [পিতা/মায়ের নাম] [ঠিকানা] [তারিখ] তার জন্ম গ্রহণ করেন। তার পিতা/মায়ে [পিতা/মায়ের নাম]। তার অত্যন্ত শ্রদ্ধেয় পিতা/মায়ের মৃত্যু [মৃত্যুর তারিখ]। তার মাতার মৃত্যু [মৃত্যুর তারিখ]।

তার পিতা/মায়ে মারা গেছেন [মৃত্যুর কারণ] কারণে এবং এই প্রতিষ্ঠানে তার ভালোবাসা এবং যোগদানের প্রতি মনোনিবেশ অবিচ্ছিন্ন ছিল।

এই প্রত্যয়ন পত্র প্রমাণ করে যে, [নাম] একজন মেধাবী ও উত্তেজনাপূর্ণ ছাত্র/ছাত্রী এবং এই প্রতিষ্ঠানে [স্কুল/কলেজের নাম] [শ্রেণী/ডিপার্টমেন্ট] এ অধ্যয়ন করছেন। তার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য, উচ্চ মর্যাদা, এবং শিক্ষার্থী সম্প্রদায়ে প্রতিষ্ঠিত হওয়া সম্ভব হয়েছে।

এই মর্মে প্রত্যয়ন পত্রটি জারি করা হল অত্যন্ত আন্তরিক শ্রদ্ধার্ঘ্য এবং মর্মাহত অবস্থায়।

তারিখ: [তারিখ]

স্বাক্ষর: ___________________
প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]

উপজাতি মর্মে প্রত্যয়ন পত্র

[তারিখ]

প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]
[ঠিকানা]

বিষয়ঃ প্রত্যয়ন পত্র

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, [নাম] [পিতা/মায়ের নাম] [ঠিকানা] একজন উপজাতি ছাত্র/ছাত্রী। তার পিতা/মায়ে [পিতা/মায়ের নাম]।

এই ছাত্র/ছাত্রী [স্কুল/কলেজের নাম] [শ্রেণী/ডিপার্টমেন্ট] এ অধ্যয়ন করছেন। তার স্কুলের/কলেজের জীবনে উচ্চ মর্যাদা এবং প্রতিষ্ঠিত হওয়া সম্ভব হয়েছে।

এই উপজাতি মর্মে প্রত্যয়ন পত্রটি জারি করা হল অত্যন্ত আন্তরিক শ্রদ্ধার্ঘ্য এবং মর্মাহত অবস্থায়।

তারিখ: [তারিখ]

স্বাক্ষর: ___________________
প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]

ভুমিহীন মর্মে প্রত্যয়ন পত্র

[তারিখ]

প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]
[ঠিকানা]

বিষয়ঃ প্রত্যয়ন পত্র

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, [নাম] [পিতা/মায়ের নাম] [ঠিকানা] একজন ভুমিহীন ছাত্র/ছাত্রী। তার পিতা/মায়ে [পিতা/মায়ের নাম]।

এই ছাত্র/ছাত্রী [স্কুল/কলেজের নাম] [শ্রেণী/ডিপার্টমেন্ট] এ অধ্যয়ন করছেন। তার স্কুলের/কলেজের জীবনে উচ্চ মর্যাদা এবং প্রতিষ্ঠিত হওয়া সম্ভব হয়েছে।

এই ভুমিহীন মর্মে প্রত্যয়ন পত্রটি জারি করা হল অত্যন্ত আন্তরিক শ্রদ্ধার্ঘ্য এবং মর্মাহত অবস্থায়।

তারিখ: [তারিখ]

স্বাক্ষর: ___________________
প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]

‌বিবাহিত মর্মে প্রত্যয়ন পত্র

[তারিখ]

প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]
[ঠিকানা]

বিষয়ঃ প্রত্যয়ন পত্র

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, [নাম] [পিতা/মায়ের নাম] [ঠিকানা] একজন বিবাহিত ছাত্র/ছাত্রী। তার পিতা/মায়ে [পিতা/মায়ের নাম]।

এই ছাত্র/ছাত্রী [স্কুল/কলেজের নাম] [শ্রেণী/ডিপার্টমেন্ট] এ অধ্যয়ন করছেন। তার স্কুলের/কলেজের জীবনে উচ্চ মর্যাদা এবং প্রতিষ্ঠিত হওয়া সম্ভব হয়েছে।

এই বিবাহিত মর্মে প্রত্যয়ন পত্রটি জারি করা হল অত্যন্ত আন্তরিক শ্রদ্ধার্ঘ্য এবং মর্মাহত অবস্থায়।

তারিখ: [তারিখ]

স্বাক্ষর: ___________________
প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]

অবিবাহিত মর্মে প্রত্যয়ন পত্র

[তারিখ]

প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]
[ঠিকানা]

বিষয়ঃ প্রত্যয়ন পত্র

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, [নাম] [পিতা/মায়ের নাম] [ঠিকানা] একজন অবিবাহিত ছাত্র/ছাত্রী। তার পিতা/মায়ে [পিতা/মায়ের নাম]।

এই ছাত্র/ছাত্রী [স্কুল/কলেজের নাম] [শ্রেণী/ডিপার্টমেন্ট] এ অধ্যয়ন করছেন। তার স্কুলের/কলেজের জীবনে উচ্চ মর্যাদা এবং প্রতিষ্ঠিত হওয়া সম্ভব হয়েছে।

এই অবিবাহিত মর্মে প্রত্যয়ন পত্রটি জারি করা হল অত্যন্ত আন্তরিক শ্রদ্ধার্ঘ্য এবং মর্মাহত অবস্থায়।

তারিখ: [তারিখ]

স্বাক্ষর: ___________________
প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]

পুনঃর্বিবাহ মর্মে প্রত্যয়ন পত্র

[তারিখ]

প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]
[ঠিকানা]

বিষয়ঃ প্রত্যয়ন পত্র

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, [নাম] [পিতা/মায়ের নাম] [ঠিকানা] একজন পুনঃর্বিবাহ করার পরের ছাত্র/ছাত্রী। তার পূর্ব স্বামী/স্ত্রী [স্বামী/স্ত্রীর নাম] ছিল।

এই ছাত্র/ছাত্রী [স্কুল/কলেজের নাম] [শ্রেণী/ডিপার্টমেন্ট] এ অধ্যয়ন করছেন। তার স্কুলের/কলেজের জীবনে উচ্চ মর্যাদা এবং প্রতিষ্ঠিত হওয়া সম্ভব হয়েছে।

এই পুনঃর্বিবাহ মর্মে প্রত্যয়ন পত্রটি জারি করা হল অত্যন্ত আন্তরিক শ্রদ্ধার্ঘ্য এবং মর্মাহত অবস্থায়।

তারিখ: [তারিখ]

স্বাক্ষর: ___________________
প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]

উত্তরাধিকার মর্মে প্রত্যয়ন পত্র

[তারিখ]

প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]
[ঠিকানা]

বিষয়ঃ প্রত্যয়ন পত্র

এই মর্মে প্রত্যয়ন করা যাচ্ছে যে, [নাম] [পিতা/মায়ের নাম] [ঠিকানা] একজন উত্তরাধিকার প্রাপ্ত ছাত্র/ছাত্রী। তার পিতা/মায়ে [পিতা/মায়ের নাম] ছিল।

এই ছাত্র/ছাত্রী [স্কুল/কলেজের নাম] [শ্রেণী/ডিপার্টমেন্ট] এ অধ্যয়ন করছেন। তার স্কুলের/কলেজের জীবনে উচ্চ মর্যাদা এবং প্রতিষ্ঠিত হওয়া সম্ভব হয়েছে।

এই উত্তরাধিকার মর্মে প্রত্যয়ন পত্রটি জারি করা হল অত্যন্ত আন্তরিক শ্রদ্ধার্ঘ্য এবং মর্মাহত অবস্থায়।

তারিখ: [তারিখ]

স্বাক্ষর: ___________________
প্রধান অধ্যাপক/প্রধান শিক্ষিকা
[স্কুল/কলেজের নাম]

প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম English

Rules for Writing Certification Letters

Sample 1:

[Date]

Principal/Head Teacher
[School/College Name]
[Address]

Subject: Certification Letter

This letter is to certify that [Name] [Father/Mother‘s Name] residing at [Address] is a diligent student and is currently studying in [School/College Name] in the [Class/Department].

Date: [Date]

Signature: ___________________
Principal/Head Teacher
[School/College Name]

Sample 2:

[Date]

Principal/Head Teacher
[School/College Name]
[Address]

Subject: Certification Letter

This is to certify that [Name] [Father/Mother‘s Name] residing at [Address] is a student in [Class/Department] in our school [School/College Name]. He/She is known for his/her excellent academic performance and conduct.

Date: [Date]

Signature: ___________________
Principal/Head Teacher
[School/College Name]

Sample 3:

[Date]

Principal/Head Teacher
[School/College Name]
[Address]

Subject: Certification Letter

This is to certify that [Name] [Father/Mother‘s Name] residing at [Address] is an outstanding student and is studying in [School/College Name] in the [Class/Department]. His/her academic and social involvement in the institution is commendable.

Date: [Date]

Signature: ___________________
Principal/Head Teacher
[School/College Name]

Sample 4:

[Date]

Principal/Head Teacher
[School/College Name]
[Address]

Subject: Certification Letter

This letter is to certify that [Name] [Father/Mother‘s Name] residing at [Address] is an enthusiastic and capable student studying in [School/College Name] in the [Class/Department]. His/her dedication to academics and participation in social activities are noteworthy.

Date: [Date]

Signature: ___________________
Principal/Head Teacher
[School/College Name]

Sample 5:

[Date]

Principal/Head Teacher
[School/College Name]
[Address]

Subject: Certification Letter

We hereby certify that [Name] [Father/Mother‘s Name] residing at [Address] is an active and responsible student of [School/College Name] in the [Class/Department]. His/her academic excellence and contribution to co-curricular activities are praiseworthy.

Date: [Date]

Signature: ___________________
Principal/Head Teacher
[School/College Name]

জেনে নিনঃ

শেষকথা

প্রত্যয়ন পত্র লেখার নিয়ম সম্পর্কে আশা করি আপনারা জানতে পেরেছেন এবং বাকি সকল পত্র লেখার নিয়ম গুলোর নমুনা জানতে উপরের নিয়ম ফলো করতে পারেন, ধন্যবাদ, আসসালামু আলাইকুম।

Share This Post
About MainitBD Author

শিক্ষা জাতীর মেরুদন্ড! শিখবো, না হয় শেখাবো।

Leave a Comment