জেনে নিন কয়েকটি প্রিন্টার সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য।

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম

আসসালামুআলাইকুম

আজকের পোস্টে আমি আপনাদের জন্য কয়েকটি প্রিন্টার সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য নিয়ে এসেছি। নিচ থেকে তথ্যগুলো দেখে নিন।

প্রিন্টারঃ
মনিটরের পরে যে আউটপুট যন্রটি আমাদের দেশে প্রয়োজন হয় তা হচ্ছে প্রিন্টার। কম্পিউটারে প্রসেসিং করার পর এর আউটপুট কাগজে ছাপানোর জন্য আমাদের প্রিন্টার ব্যবহার করতে হয়। ডিজিটাল ক্যামেরায় তোলা ছবিও আমরা প্রিন্টারে প্রিন্ট করে থাকি। সাধারণত তিন ধরনের প্রিন্টার পাওয়া যায়।

১. ডট ম্যাট্রিক্স প্রিন্টারঃ
এটি প্রথম দিকের প্রিন্টার। ছাপায় ব্যয় অনেক কম সেজন্য এ প্রিন্টারটি এখনও অত্যন্ত জনপ্রিয়। তবে এটি দিয়ে নিখুঁত ছাপার কাজ করা যায় না। তাছাড়া এটির ছাপার গতি অনেক ধীর।

১. ইঙ্কজেট প্রিন্টারঃ
স্বল্পদামি প্রিন্টার হিসেবে এটি বহুল ব্যবহৃত। সাধারণত ব্যক্তিগত কাজে ইঙ্কজেট প্রিন্টার বেশি ব্যবহার করা হয়। এটিতে তরল কালি ব্যবহৃত হয়। এটি দিয়ে নিখুঁত ছাপার কাজ করা যায়। বিশেষ করে ছবি প্রিন্ট করার কাজে ইঙ্কজেট প্রিন্টারের ব্যবহার অধিক। তবে এর ছাপার ব্যয় তুলনামূলক বেশি।

১. লেজার প্রিন্টারঃ
নাম দেখে নিশ্চয় বুঝে ফেলেছেন এর সাথে লেজারের সম্পর্ক রয়েছে। এ ধরনের প্রিন্টারে লেজার রশ্মির সাহায্যে কাগজে লেখা ছাপা হয়। লেজার প্রিন্টারের ছাপার গতি ও মান অত্যন্ত উন্নত ও নিখুঁত।
সাধারণ ছাপা এবং ছবি প্রিন্ট উভয় ধরনের কাজেই এটি অত্যন্ত জনপ্রিয়। একসময় ব্যয়বহুল থাকলেও প্রযুক্তির উন্নয়নের কারণে এটি এখন অনেক ব্যয়-সাশ্রয়ী।

এছাড়া প্লটারও একটি ছাপার যন্ত্র। আর্কিটেকচারাল নকশা, মানচিত্র বা গ্রাফের নিখুঁত ও অনেক বড় কাগজে প্রিন্ট করার ক্ষেত্রে এটি ব্যবহৃত হয়।

তো এই ছিল আজকের পোস্ট। আশা করি সবার ভালো লেগেছে।

সবাইল ভালো থাকুন, সুস্থ্য থাকুন, আর ট্রিকবিডির সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ।

আর সময় পেলে আমাদের সাইটটি একবার ঘুরে আসতে পারেন।

Share This Post
About MainitBD Author

শিক্ষা জাতীর মেরুদন্ড! শিখবো, না হয় শেখাবো।

Leave a Comment