ইন্টারনেটের দাম কমানোর ঘোষণা আসছে: তারানা হালিম!

আগামী দুই-একদিনের মধ্যেই ইন্টারনেটের দাম কমানোর ঘোষণা আসতে পারে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল পরিদর্শনকালে তিনি এ কথা বলেন।

তারানা হালিম জানান, সরকার ইন্টারনেটের গতি বাড়িয়ে দাম কমানোর পক্ষে কাজ করে যাচ্ছে সরকারের পক্ষ থেকে একটি নির্দিষ্ট মূল্য ঠিক করে দেয়া হবে। যাতে গ্রাহক এবং ব্যবসায়ী কোনো পক্ষই যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয়।

নতুন ক্যাবল লাইন সম্পর্কে তারানা হালিম বলেন, ইন্টারনেট পেতে এখন আর কোনো সমস্যা হবে না। প্রথম সাবমেরিন ক্যাবলে কোনো সমস্যা হলে দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল থেকে ইন্টারনেট সেবা দেয়া হবে।

এছাড়া দ্বিতীয় ক্যাবলের মাধ্যমে আসা ব্যান্ডউইডথ ব্যবহারের পর উদ্ধৃত ব্যান্ডউইডথ রফতানির কথাও জানান ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে নতুন সাবমেরিন ক্যাবলের সাথে যুক্ত হয় বাংলাদেশ। নতুন এই সাবমেরিন ক্যাবলের নাম ‘দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া-মিডল ইস্ট-ওয়েস্টার্ন ইউরোপ ৫’ (সি-মি-উই-৫)। এটিতে যুক্ত হওয়ার পর থেকে বাংলাদেশে বাড়তি ১৫০০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইথ যোগ হবে। তবে এখন পর্যন্ত মাত্র ২০০ জিপিবিএস পাওয়া যাচ্ছে। বাকি কাজ অল্প কদিনেই শেষ হবে।

সি-মি-উই ৫ নামের এই কনসোর্টিয়ামে ১৭টি দেশের ১৫টি শীর্ষস্থানীয় টেলিকম অপারেটর সংযুক্ত রয়েছে। ফলে আন্তর্জাতিক ব্যান্ডউইথ ট্রেডের সঙ্গে পুরোদমে যুক্ত হলো বাংলাদেশ।

বিএসসিসিএলের ম্যানেজিং ডিরেক্টর মনোয়ার হোসেইন জানান, এই সাবমেরিন ক্যাবলের সাথে যুক্ত হওয়ায় বাংলাদেশ এখন থেকে সবসময় অনলাইনে থাকবে। তবে নতুন সাবমেরিন ক্যাবলের ব্যান্ডউইথ এখনও ঢাকায় আনার ব্যবস্থা করা হয়নি। আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই তা করা হবে বলে জানিয়েছে বিএসসিসিএল।

বর্তমানে একটি সাবমেরিন ক্যাবল থেকে ৩০০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইথ পায় বাংলাদেশ। সি-মি-উই ৫ ক্যাবলের সাথে যুক্ত হওয়ার ফলে বাংলাদেশ ১৫০০ জিবিপিএস বাড়তি ব্যান্ডউইথ পাবে।

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে বাংলাদেশ প্রথম সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগ পায়। বর্তমানে ভারত আটটি ক্যাবল এবং পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা চারটি ক্যাবলের সাথে যুক্ত হয়েছে।

zoombangla

Share This Post
About MainitBD Author

শিক্ষা জাতীর মেরুদন্ড! শিখবো, না হয় শেখাবো।

Leave a Comment