যে যে কারনে ভিটামিন ডি দরকার জেনে নিন!

শিশুদের শ্বাসকষ্ট ও পেশীর দুর্বলতা তৈরি হয় ভিটামিন ডি-এর অভাবে। এমনকি এর স্বল্পতার কারণে হাড়ের ক্ষয় রোগ, হার্টের সমস্যা, স্মৃতিভোলা সমস্যাসহ নানা স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দিতে পারে।
জেএএমএ নিউরোলজি জার্নালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়- ভিটামিন ডি-এর অভাবে মস্তিষ্কের গঠনগত সমস্যা পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

এ ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রে ভিটামিন ডি ডেফিসিয়েন্সি ও ইনসাফিসিয়েন্সিকে দু’ভাগে ভাগ করা হয়েছে। প্রতি মিলিলিটার রক্তে যদি ১২ থেকে ২০ ন্যানোগ্রাম ভিটামিন ডি থাকে তাহলে ধরতে হবে ভিটামিন ডি ইনসাফিসিয়েন্সি আর রক্তে যদি ভিটামিন ডি-এর মাত্রা ১২ এনজি/এমএল থাকে তাহলে এটাকে ডেফিসিয়েন্সি বলা হয়।
দ্য ন্যাশনাল হেলথ এন্ড নিউট্রিশন এক্সামিনেশন সার্ভে অনুযায়ী শতকরা ৪২ ভাগ প্রাপ্তবয়স্কদের এবং শতকরা ৫০ ভাগ ৬৫ বছরের-ঊর্ধ্বের পুরুষ-মহিলাদের ভিটামিন ডি-এর অভাব রয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা প্রধানত তিনটি কারণে ভিটামিন ডি-এর অভাব হয় বলে মনে করেন।

কারণগুলো হচ্ছে- প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার না আহার করা, শরীরে সূর্যের আলো কম লাগানো এবং কালো ত্বকের কারণে শরীরে ভিটামিন ডি-এর অভাব হয়। আর গবেষণায় এটাও প্রতীয়মান হয়েছে ভিটামিন ডি-এর অভাবের কারণে মানুষের কার্যক্ষমতা হ্রাস পায় এবং স্মৃতিশক্তি কমতে থাকে।

বিশেষজ্ঞদের অভিমত হচ্ছে- ভিটামিন ডি-এর অভাব পূরণে ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট সেবনের উপকারিতা এখনও প্রমাণিত নয়। তবে প্রচুর ভিটামিনসমৃদ্ধ খাবার আহার যেমন: ফিস অয়েল, ডিমের সাদা অংশ, ছোট মাছ ইত্যাদি আহার করা এবং প্রতিদিন শরীরে কিছু সময় সূর্যের আলো লাগানো উচিত।

Share This Post

Leave a Comment