যে যে কারনে ভিটামিন ডি দরকার জেনে নিন!

শিশুদের শ্বাসকষ্ট ও পেশীর দুর্বলতা তৈরি হয় ভিটামিন ডি-এর অভাবে। এমনকি এর স্বল্পতার কারণে হাড়ের ক্ষয় রোগ, হার্টের সমস্যা, স্মৃতিভোলা সমস্যাসহ নানা স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দিতে পারে।
জেএএমএ নিউরোলজি জার্নালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়- ভিটামিন ডি-এর অভাবে মস্তিষ্কের গঠনগত সমস্যা পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

এ ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রে ভিটামিন ডি ডেফিসিয়েন্সি ও ইনসাফিসিয়েন্সিকে দু’ভাগে ভাগ করা হয়েছে। প্রতি মিলিলিটার রক্তে যদি ১২ থেকে ২০ ন্যানোগ্রাম ভিটামিন ডি থাকে তাহলে ধরতে হবে ভিটামিন ডি ইনসাফিসিয়েন্সি আর রক্তে যদি ভিটামিন ডি-এর মাত্রা ১২ এনজি/এমএল থাকে তাহলে এটাকে ডেফিসিয়েন্সি বলা হয়।
দ্য ন্যাশনাল হেলথ এন্ড নিউট্রিশন এক্সামিনেশন সার্ভে অনুযায়ী শতকরা ৪২ ভাগ প্রাপ্তবয়স্কদের এবং শতকরা ৫০ ভাগ ৬৫ বছরের-ঊর্ধ্বের পুরুষ-মহিলাদের ভিটামিন ডি-এর অভাব রয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা প্রধানত তিনটি কারণে ভিটামিন ডি-এর অভাব হয় বলে মনে করেন।

কারণগুলো হচ্ছে- প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার না আহার করা, শরীরে সূর্যের আলো কম লাগানো এবং কালো ত্বকের কারণে শরীরে ভিটামিন ডি-এর অভাব হয়। আর গবেষণায় এটাও প্রতীয়মান হয়েছে ভিটামিন ডি-এর অভাবের কারণে মানুষের কার্যক্ষমতা হ্রাস পায় এবং স্মৃতিশক্তি কমতে থাকে।

বিশেষজ্ঞদের অভিমত হচ্ছে- ভিটামিন ডি-এর অভাব পূরণে ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট সেবনের উপকারিতা এখনও প্রমাণিত নয়। তবে প্রচুর ভিটামিনসমৃদ্ধ খাবার আহার যেমন: ফিস অয়েল, ডিমের সাদা অংশ, ছোট মাছ ইত্যাদি আহার করা এবং প্রতিদিন শরীরে কিছু সময় সূর্যের আলো লাগানো উচিত।

Share This Post
About MainitBD Author

শিক্ষা জাতীর মেরুদন্ড! শিখবো, না হয় শেখাবো।

Leave a Comment