থ্যাংক ইউয়ের পরিবর্তে কী বলা যায়?

প্রশ্ন : কেউ থ্যাংক ইউ বললে কি ওয়েলকাম বলা যায়? ইসলামী সংস্কৃতিতে থ্যাংক ইউ এবং ওয়েলকামের পরিবর্তে কী বলা হয়।

উত্তর : থ্যাংক ইউ বললে ওয়েলকাম বলতে কোনো আপত্তি নেই। এটাকে আসলে বলা হয়ে থাকে সামাজিক অথবা ভাষার পার্থক্য। বড় ধরনের কোনো পার্থক্য এখানে নেই। তবে ইসলামী সংস্কৃতিতে এটি ভিন্ন। শরিয়াহসম্মত হচ্ছে, কাউকে যদি আপনি কোনো বিষয় বলতে চান, তাহলে বলবেন শুকরান, অর্থ একই। যিনি আছেন এর উত্তরে বলবেন আফওয়ান। শুকরান এবং আফওয়ান আরবীয় সংস্কৃতি। এটি কিন্তু ইসলামী সংস্কৃতি নয়।

ইসলামি সংস্কৃতিতে কেউ ভালো কাজ করে থাকলে বলা হয় জাজা কুমুল্লাহ খাইরান। আল্লাহর নবী (সা.) মুকাফাহার জন্য, মাকাফাতুল এহসান, কোনো ব্যক্তি যদি কারো ভালো কাজ করে থাকে, নবী (সা.) বলেছেন যে, তাঁকে যদি তুমি কিছুই দিতে না পার, তখন তুমি বলবে, সাকা আল্লাহু খাইরান। তখন সেই ব্যক্তি বলবে ওয়া ইয়াকুম, ‘তোমাকেও আল্লাহ উত্তম মর্যাদা দান করুন।’ এটা হচ্ছে মূলত ইসলামী সংস্কৃতির মূল পদ্ধতি।

আমরা সব পদ্ধতি জেনেছি। কিন্তু ইসলামি সংস্কৃতির যে পদ্ধতিগুলো রয়েছে সেগুলোর সঙ্গে প্রচলিত সামাজিক অথবা কোনো সামাজিক সংস্কৃতির যদি সাংঘর্ষিক কোনো বিষয় না থাকে তাহলে ইসলামে সবটাই প্রযোজ্য। এগুলোতে শরিয়ার কোনো নিষেধ্জ্ঞা নেই। এ ক্ষেত্রে ওয়েলকাম দিলে তার কোনো কাজে আসবে না। কিন্তু জাজা কুমুল্লাহ খাইরান যদি বলা হয়ে থাকে, এটি তাঁর কাজে আসবে। তার বড় ধরনের উপকারে আসবে। এই দুইয়ের মধ্যে একটু পার্থক্য রয়েছে। তাই আমরা কালচারগুলো বুঝি। তবে একটি সংস্কৃতির সঙ্গেও শরিয়ার কোনো নিষেধ্জ্ঞা নেই। সবটাই জায়েজ। আমরা চেষ্টা করব, যেটি উত্তম, সেটা করার জন্য।

সূত্রঃ এনটিভি ”আপনার জিজ্ঞাসা’

Share This Post
About MainitBD Author

শিক্ষা জাতীর মেরুদন্ড! শিখবো, না হয় শেখাবো।

Leave a Comment