আসুন জেনে নিই PTC সাইট কি ও কিভাবে মাসে ১০০$ আয় করা যায়।

Welcome To IncomeHelp.Ga

PTC সাইট কি:

PTC এর পুর্ন রূপ হচ্ছে Paid to Click” PTC
সাইট হচ্ছে Traffic Exchanger। অর্থাৎ
বিভিন্ন বিজ্ঞাপন দাতারা যাদের
বিজ্ঞাপনের বাজেট কম তারা তুলনামুলক
কম মুল্যে পিটিসি সাইটে এড দেয়! কিন্তু
সেই এড দেখবে কে? তাই আমার আপনার
মত লোকজন সেই এড গুলো দেখি এবং এই
এড গুলো দেখার বিনিময়ে পিটিসি সাইট
গুলো আমাদের নির্দিস্ট অর্থ প্রদান
করে। আপনাকে সাইট গুলো প্রতিদিন
একটি নির্দিস্ট পরিমান এড দিবে এবং
আপনি সেই এড গুলো দেখবেন এবং প্রতি
এড দেখার বিনিময়ে আপনাকে সর্বোচ্চ ১
সেন্ট পর্যন্ত পে করবে (ফ্রি
মেম্বারশিপের ক্ষেত্রে) । এছাড়া
আপনার রেফারেলে কেউ যদি ওই সাইটে
রেজিস্ট্রেশন করে, তবে তাদের দেখা
প্রতি এডের বিনিময়ে আপনি পাবেন
সর্বোচ্চ ০.৫ সেন্ট করে (মেম্বারশিপের
ক্ষেত্রে) । আপনি ভালো সাইট গুলো
থেকে গড়ে রেফারেল ছাড়া দৈনিক ৩-৫
সেন্ট আয় করতে পারবেন। পিটিসি কাজ
সম্পর্ক জানেন তাদের জন্য এই পোষ্ট নয়
যারা নতুন তাদের জন্যই আমার এই ক্ষুদ্র
প্রয়াস। ইন্টারনেটে অনেকে পিটিসি
সাইট আছে যার বেশির ভাগই ভুয়া
(Scam) পেমেন্ট করে না। তাই সবার
কাছে অনুরোধ থাকবে কোন সাইট দেখেই
কোন খোজ খবর না নিয়ে কাজ শুরু করবেন
না যেন। পিটিসি সাইট গুলোর ৮০% ই
ভুয়া অর্থাৎ স্ক্যাম। কিন্তু বাকি ২০%
পিটিসি থেকে সত্যি আয় করা যায়,
কথাটা ১০০% সত্য!
ইন্টারনেটে আয় এর অন্যতম উপায় হচ্ছে
পিটিসি সাইট থেকে। অনেকেই হয়ত
বলবে আপনি যদি কোন কাজ এ দক্ষ হয়ে
থাকেন (যেমন গ্রাফিক্স ডিজাইন, কোন
প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ,ডাটা এন্টি বা
অন্য যেকোন ধরনের সফটওয়্যারে) যদি
আপনার দক্ষতা থেকে থাকে তাহলে
পিটিসি সাইটে কাজ করে নিজের
মূল্যবান সময় নষ্ট করবেন না, এটা তাদের
ভুল ধারণা মাত্র! আমার মতে আপনি ঐসব
কাজকে প্রফেশনাল হিসেবে নিয়ে
পিটিসিকে পার্টটাইম জব হিসেবে গ্রহণ
করতে পারেন! ফ্রিল্যান্সিং
সাইটগুলোতে কি আপনাকে এমনি এমনি
টাকা দিবে? ফ্রিল্যান্সিং এ যে
পরিমাণ পরিশ্রম করতে হয় পিটিসিতে
তার ২০ ভাগের ১ ভাগও করতে হয় না।
পিটিসি শুধু মাত্র তাদের জন্য নয় যাদের
দিনে কিছু ফ্রী সময় আছে কিন্ত কোন
কাজ পারেন না ,বা অনলাইনে আয়ের
ব্যাপারে একেবারে নতুন বা আয়ের জন্য
কাজ শিখছেন। বরং আপনি অন্যান্য
কাজের ফাকেই পিটিসিতে সময় দিয়ে
এক্সট্রা এক ইনকাম করতে পারেন! যে
সাইটে কাজ করবেন তার সম্পর্কে গুগলে
(Google) এ সার্চ করুন সাইটটি সম্পর্কে
বিস্তারিত জানুন। আপনারা কতগুলি
টেকনিক মেনে চললে ধরা খাবার
সম্ভাবনা খুবই কম থাকবে। তবে আপনারা
মনযোগ সহকারে নিচে লেখাটি পড়ার
জন্য অনুরোধ রইল।

PTC সাইটের প্রকারভেদ:

PTC সাইট মুলত ৪ ধরনেরঃ
১. Elite PTC Site :- এই পিটিসি সাইট
গুলো অনেক পুরনো, কোন রকম সমস্যা
ছাড়াই নিয়মিত গ্রাহকদের পেমেন্ট করে
আসছে। এই ধরনের পিটিসি সাইট খুব কম,
অনেক খুজে বের করতে হয়, কিন্তু কাজ
করার জন্য নিরাপদ।
২. Legit PTC Site ংরঃব :- পুরোনো সাইট,
অতীতে কিছু সমস্যা দেখা গিয়েছিলো
সেগুলো রিকভার করে বর্তমানে
গ্রাহকদের নিয়মিত পেমেন্ট করে যাচ্ছে,
তবে স্ক্যাম হবার হাল্কা পাতলা
সম্ভাবনাও আছে। কাজ করা যেতে
পারে।
৩. New PTC Site :- এসব পিটিসি সাইট
একবারেই নতুন লোভনীয় অফার যুক্ত,
ম্যাক্সিমাম নিউ সাইট কিছুদিন পেমেন্ট
করার পর স্ক্যাম হয়ে যায়, বাজারে এদের
সংখ্যাই বেশি। কাজ করা প্রচুর রিস্কি
এবং এখানে কাজ করে আয় করার
সম্ভাবনা ৪০%। তাই এ ধরনের সাইট
গুলোতে কাজ করতে অধিক সতর্কতা
অবলম্বন করতে হবে ।
৪. Scam PTC Site:- যেসব লিগিট বা নিউ
সাইট গ্রাহকদের হটাৎ পেমেন্ট বন্ধ করে
দেয়, উল্টা পালটা অ্যাকাউন্ট ব্যান করে
দেয় সেগুলোকে Scam সাইট বলে। এসব
সাইট থেকে ১০০ হাত দূরে থাকুন।
যদি কোন সাইট সম্পর্কে স্ক্যাম (scam)
হিসেবে কোন তথ্য পান তাহলে ভুলেও
সেই সাইটে কাজ করে সময় নষ্ট করবেন
না।

PTC Site কেন পেমেন্টে করেঃ

একটি ভাল PTC সাইট ছিনতে হলে
দেখতে হবে সাইটটি আপনাকে কেন
পেমেন্ট দিবে। আপনাকে পেমেন্ট দিয়ে
সাইটের লাভ আছে কি না। প্রতিটি
পিটিসি সাইট ই এক-একটা কোম্পানি।
যে কোনো কম্পানিতে যদি নিয়মিত লাভ
হতে তাকে তাহলে সেই কম্পানি কখনও
বন্ধ হয়। তেমনি সাইটের যদি লাভ হয়
তাহলে কখনও সাইট বন্ধ হবে না। প্রথমে
দেখতে হবে সাইটে ইনকাম কোথায়
থেকে হচ্ছে। তাদের আয় থেক্ েব্যয় কি
কম হচ্ছে নাকি বেশি। তার রেগুলার
ভিজিটর বাড়তেছে কি না। এগুলোর উপর
ভিত্তি করে একটি পিটিসি সাইট। যদি
তাদের নিয়মিত ইনকাম হয় এবং আপনাকে
পেমেন্ট দিয়ে তাদের লাভ তাকে
তাহলে তারা আপনাকে পেমেন্ট দিয়ে
যাবে। আর যদি পেমেন্ট দিয়ে তাদের
লাভ না হয় তাহলে কিছু দিন বন্ধ হয়ে
যেতে পারে অথবা সাইটে কিছু নতুন এড
হবে। প্রতিটি সাইটে প্রতি ভিজিটরই
তাদের প্রয়োজনীয় তাই তারা আপনাকে
নিয়মিত পেমেন্ট দিয়ে যাবে।
পিটিসি নিয়ে বলছি দেখা যায় এ নিয়ে
মানুষের আগ্রহের কমতি নেই। আর
আমাদের জন্য তো বটেই। আমরা কাজ
করতে চাই কম, আয় করতে চাই বেশি।
আমার মতে,পিটিসি সাইটে আয় করতে
চাইলে সময় দিন, বিভিন্ন
ফোরাম,ফেসবুক গ্রুপ এবং অনলাইন আয়ের
বিভিন্ন ডবনংরঃব বা ব্লগে। দিন দিন
মানুষের আগ্রহ বেড়েই চলছে। কারন
হিসাবে বলা চলেঃ-
সহজ
বাড়তি কোন অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হয় না
৩০-৪৫ মিনিট সময় ব্যয় করলেই হয়।
আয় কম বলা যাবে না।
যেমন আমি নিওবাক্সে দেখেছি এখানে
অনেকের আয় মাসিক লক্ষ টাকার উপরে
(যাদের ডাইরেক্ট রেফারেল ৫০০০+)
রেন্টেড কত হত পারে? আমি বিভিন্ন
জায়গায়,ডবন এ এ্যাড দিয়ে রেফারেল
বাড়াবার চেষ্টা করি। সেখানে আমি
বিভিন্ন দেশের রেফারার পাই।
USA,UK,BELZIUM,NETHERLAND,HONGKON
এরা প্রতিদিন কাজ করে কিন্তু আমাদের
দেশের অনেকে এখানে এ্যাকাউন্ট অপেন
করে কিন্তু দেখা যায় নিয়মিত কাজ করে
না আবার অনেকে এত অল্প আয় দেখে
আগ্রহ হারিয়ে ফেলে। আসুন দেখি
ইউরোপ,আমেরিকা পারলে আমরা পারব
না কেন।

যারা প্রতি মাসে ১০০$-৩০০$ আয় করতে চান :

১. আপনার হাতে যদি প্রতিদিন ১-১.৩০
ঘন্টা সময় থাকে তবে আপনি পদ্ধতিগুলো
অনুসরণ করতে পারেন।
২. প্রথমেই ১০টি এলিট পিটিসি সাইট
নির্বাচন করুন। যা আমি আপনাদের
সুবিধার্থে নিচে লিংক পোষ্ট করেছি।
শুনতে খুব সহজ মনে হচ্ছে বাট এই
খোজাটাই সবচেয়ে কঠিন। হাজার হাজার
পিটিসি সাইট থেকে এলিট সাইট খুজতে
জান বের হয়ে যাবে। একটা কথা মনে
রাখবেন এলিট সাইট পাওয়া এত সোজা
কথা না। তারপরেও যদি খোজাখোজি করে
সাইট বের করতে পারেন তাহলে করেন।
আমার আপত্তি নাই। তবে স্ক্যাম সাইট
কিনা, ভুয়া কিনা, পেমেন্ট মেথড, কি
রকম পেমেন্ট দিচ্ছে, সাইটের বয়স,
সাইটের ইনকাম কোথায় থেকে আসে।
সাইটের মালিকের ডাটা, ইত্যাদি দেখে
কাজ করবেন। অন্যথায় সারা মাস বছর
কাজ করে দেখবেন সে আর ব্যবসা নাও
করতে পারে এবং পেমেন্ট ব্লক হয়ে
যাবে। তবে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন
ব্যক্তিদের কাছ থেকে জেনে নিয়ে
পিটিসি সাইটে কাজ করা উত্তম বলে
আমি মনে করি। তারপরে আমি পরামর্শ
দিচ্ছি।
৩. এমন এলিট সাইট নির্বাচন করুন যেগুলো
রেফারেল ছাড়া আপনাকে দিনে ৩-৫সেন্ট
পে করবে। কিছু সাইট আছে যেগুলো ৪টি
এড দেখার বিনিময়ে আপনাকে ৪সেন্ট
দিচ্ছে আবার কিছু সাইট আছে যেগুলো
দিনে আপনাকে ঠিকই ৪সেন্ট পে করছে
কিন্তু তার বিনিময়ে এড দেখাচ্ছে
১০-১২টি, মানে প্রতিদিন আপনাকে পে
তারা খুব কম করছে, এতে করে আপনার
বেশি সময় লাগবে, সম্ভব হলে সেগুলো
পরিহার করুন।
৪. যেসব অরিজিনাল পিটিসি সাইটে
দেখবেন প্রতি ক্লিকে আপনাকে সামান্য
বেশি পে করছে বাট মিনিমাম পেমেন্টের
পরিমান খুবই বেশি যেমন ১৫$ ২০$ এরকম
তখন সেসব সাইটে অ্যাকাউন্ট খুলবেন না
কারন রেফারেল ছাড়া সেই মিনিমাম
পেমেন্টে পৌছাতে আপনার বছর কাবার
হয়ে যাবে। সাধারানত যেসব এলিট
অথবা লিগিট সাইটে মিনিমাম ক্যাশ
আউট ২$-৫$ সেগুলো সিলেক্ট করুন।
৫. একটি পিসি অর্থাৎ একটি আইপি
এড্রেস থেকে কোন পিটিসি সাইটে
একটি মাত্র অ্যাকাউন্ট করা যাবে।
৬. একই আইপি থেকে একাধিক অ্যাকাউন্ট
করার চেস্টা করবেন না এতে ২টি
অ্যাকাউন্টই ব্যান হবার সম্ভাবনা থাকে।
৭. বিভিন্ন লোভনীয় অফার যুক্ত নতুন
পিটিসি সাইট পরিহার করুন, যেমন
দেখলেন অ্যাকাউন্ট খুললেই ১$ বোনাস
অথবা ১ম ১০০০ জন পাবেন প্রিমিয়াম
অ্যাকাউন্ট এর সুবিধা ইত্যাদি ইত্যাদি,
মনে রাখবেন এগুলোই এক সময় স্ক্যাম
করে বসে ।
৮. কাজ শুরু করার আগে আপনার যেসব বন্ধু
বান্ধব, কাজিন, রিলেটিভ যারা পিটিসি
সম্পর্কে জানেনা, তাদের কনভেন্স করে
আপনার ডাইরেক্ট রেফারেল করে নিন,
নূন্যতম ১০জন হলে খুব ভালো হয়, কারন
ব্লগে ব্লগে নিজের পিটিসি সাইটের
গুনগান করে রেফারেল চাওয়া নিজের
ব্যাক্তিত্ব নস্ট করে এবং অন্যের
বিরক্তির কারন হয়। তাছাড়া ব্লগে ব্লগে
রেফারেল ভিক্ষা চাওয়া আমার
ব্যক্তিগত ভাবে পছন্দ না।
৯. সবসময় রেফারেলের সংখ্যা বাড়াতে
চেস্টা করবেন কারন মুলত রেফারেলের
সংখ্যার উপরেই আপনার ইনকামের
পরিমান নির্ভর করবে। আপনার রেফারেল
লিঙ্ক যেকোন পিটিসি অ্যাকাউন্ট এর
ব্যানার অপশন এ থাকবে। ওই লিঙ্কের
মাধ্যমে আপনার বন্ধুদের রেজিস্ট্রেশন
করান।
১০. সবসময় চেস্টা করবেন পরিচিত বা
অন্য কারো রেফারেল এ যোগ দিতে,
কারন আপনি যদি রেফারেল ছাড়া যোগ
দেন তবে সাইটের এডমিন আপনাকে প্রতি
মাসে মাসে আপনার অনুমুতি না নিয়ে
বিভিন্য মানুষের কাছে রেন্টেড
রেফারেল হিসাবে বিক্রি করবে আর এই
জিনিশ টা আমার কাছে ভালো লাগে
না। আমার জন্য কারো যদি একটু উপকার হয়
তবে ক্ষতি কি?
১১. যদি কাজ করার ইচ্ছা থাকে তবে একটু
কস্ট করে নিয়মিত কাজ করবেন কারন
সাইটে নিয়মিত কাজ না করলে অর্থাৎ
দিনে নির্দিস্ট সংখ্যক বিজ্ঞাপন না
দেখলে আপনার রেফারেল এর ক্লিকে
টাকা পাবেন না এবং একটি নির্দিস্ট
সময় ইনএক্টিভ থাকলে আপনার পিটিসি
অ্যাকাউন্ট অটোমেটিকেলি ডিলিট হয়ে
যাবে।
১২. অনেক সময় অ্যাকাউন্ট খুলতে
ঝামেলা হতে পারে বিশেষত যারা
মোবাইল কোম্পানি গুলোর শেয়ারড আইপি
ইউজ করে যেমন গ্রামীণ, বাংলালিঙ্ক,
রবি, এয়ারটেল ইন্টারনেট। সেক্ষেত্রে
যে কোন ভালো আইপি চেঞ্জার
সফটওয়্যার দ্বারা আইপি চেঞ্জ করে
অ্যাকাউন্ট টা খুলে নিতে পারেন।
১৩. আপনি কিছু অর্থের বিনিময়ে
নির্দিস্ট সময়ের জন্য (যেমন ১মাস) কিছু
রেফারেল কিনতে পারেন। তবে
এক্ষেত্রেও সাবধান, বুঝে শুনে টাকা
ইনভেস্ট করবেন আর এক সাথে অনেক
টাকা ইনভেস্ট করার দরকার নাই, ধরা
খেলে নিজের চুল ছেড়া ছাড়া কোন উপায়
থাকবে না।
১৪. আপনাদের একটা ছোট্ট হিসাব দেখাই,
ঝঁঢ়ঢ়ড়ংব আপনার প্রথম মাস ১০টি
অ্যাকাউন্ট খুললেন, প্রত্যেক সাইট দিনে
৪ সেন্ট করে পে করে। সুতরাং রেফারেল
ছাড়া দিনে ১০টি সাইট থেকে আয় করতে
পারবেন ৪০সেন্ট করে এবং মাসে
(৪০*৩০)=১২০০সেন্ট মানে ১২ডলার মানে
৮৪০টাকা। আবার, ম্যাক্সিমাম সাইট
গুলো পার রেফারেল ক্লিকে করে পে
করে .০০৫সেন্ট করে। আপনার যদি ১০জন
ডাইরেক্ট রেফারেল থাকে আর তাদের
ডেইলি এভারেজ ক্লিক হয় ২.৫ তবে একটি
সাইট থেকে আপনার ডেইলি ইনকাম
(.০০৫*২.৫*১০)= ০.১২৫সেন্ট + আপনার
নিজের ইনকাম ৪সেন্ট= (০.১২৫+৪)= ০.১৬৫
সেন্ট , সুতরাং ৩০দিনে আয় (০.১৬৫*৩০)=
৪৯.৫০ ডলার বা ৫০$ (প্রায়) বা ৩৫০০টাকা।
আবার অনেক সাইট আছে যাদের কাছ
থেকে রেফারেল রেন্ট করা যায় এবং
তাদের দ্বারা আয় করা যায়।যেমন
নিয়োবাক্সে আমার রেন্ট রেফারেলের
সংখ্যা ১০০+ এবং প্রতি মাসে এই
সংখ্যা বাড়ছে।(.০০৫*২.৫*১০০)= ১.২৫ ডলার
মাসে (১.২৫*৩০)= ৩৭.৫০ ডলার।
(৩৭.৫*১০)= ৩৭৫ডলার।এভাবে যদি ১০ টা
সাইট থেকে আয় করতে পারেন এবং
রেফারেল বাড়াতে পারেন, তাহলে
আপনার আয় হতে পারে মাসে লক্ষ
টাকা।
১৫. ১০টি সাইটের পিছনে আপনাকে
প্রতিদিন সময় ব্যয় করতে হবে
৩০-৪৫মিনিট। একটি একটি করে ১০টি
সাইটের এড দেখতে কিন্তু অনেক সময়
লাগবে, ৫টি করে সাইট ৫টি টেব এ
খুলবেন। প্রতি এডে ক্লিক করার পর পর ই
ব্রাউজারের ইমেজ লোড অফ করে দিন
তবে এড তারাতারি লোড হবে। এড দেখা
শেষ হলে আবার ইমেজ লোড অন করুন এবং
নতুন এডে ক্লিক করার পর একই পদ্ধতি
অবলম্বন করুন।
১৬ . প্রতি ১৫দিনে একবার করে আপনার
সাইট গুলো সম্পর্কে গুগলে খোজ খবর নিন
যে সাইট ঠিক ঠাক আছে কিনা।
আমি কিছু আপনাদের পিটিসি সাইটের
লিষ্ট নিচে লিংক পোষ্ট করেছি। যে
সাইটগুলো ভুয়া না বরং তাদের কারণে
৩হাজার কোটি টাকার পিটিসি অনলাইন
মার্কেট টিকে আছে। যারা ওয়ার্কারদের
১০০% পেমেন্ট করে থাকে। নিচের
পিটিসি সাইট এর লিংকে ক্লিক করে
রেজিষ্ট্রেশন করুন। নিরলস ভাবে কাজ
করে যান। কাজ করে দেখেন ক্ষতি তো
নাই। আমরা ভয়ে অনেক কিছু করি। এই
ভয়টাকে ভাঙ্গতে ভাঙ্গতে আবার
অনেকে টাকা ইনকাম করে ফেলতেছে।

আশা করি পোস্ট টি ভালো লেগেছে।
যদি ইনকাম করতে চান তাহলে আপনার মন মানসিকতা ঠিক করুন।
আমি পরের পর্বে ভালো সাইট দিব।
আমাদের সাথেই থাকুন।
ধন্যবাদ।

Share This Post
About MainitBD Author

শিক্ষা জাতীর মেরুদন্ড! শিখবো, না হয় শেখাবো।

Leave a Comment